ফাঁপা কাচ (The Empty Glass) Poem by Louise Glück – *Nobel Prize – 2020 / Translated into Bengali by Professor Dr. Masudul Hoq

Poem by Louise Glück – *Nobel Prize – 2020

——–আমেরিকান কবি লুইজ গ্লুকের কবিতা ———–


ফাঁপা কাচ (The Empty Glass)

মূল: লুইজ গ্লুক
রূপান্তর : মাসুদুল হক
আমি অনেক চেয়েছি; আমি অনেক পেয়েছি।
আমি অনেক চেয়েছি; আমি সামান্য পেয়েছি, আমি  আসলে কিছুই পাইনি।
আর মাঝে? কয়েকটা ছাতা ঘরের মধ্যেই খোলা।
রান্নাঘরের টেবিলে ভুল করে পড়ে আছে একজোড়া জুতো।
হে ভুল, ভুল — এটাই আমার স্বভাব ছিল। আমি ছিলাম কঠোর হৃদয়, দূরবর্তী। আমি ছিলাম
স্বার্থপর, স্বৈরশাসনের পক্ষপাতী।
তবে আমি সবসময় সেই মানুষটিই ছিলাম, এমনকি শৈশবকালেও।
ছোট, ঘন কালো কেশে আবৃত, অন্যান্য শিশুদের ভয়ে আতঙ্কিত।
আমি কখনই বদলায়নি। কাচের ভিতরে, বিমূর্ততা
ভাগ্যের জোয়ারে পরিণত
রাতারাতি উচ্চ থেকে নিম্নে।
এটা কি সমুদ্র ছিল? হয়তো, জবাব দিচ্ছে,
মহাকাশের দিকে! নিরাপদ থাকতে,
আমি প্রার্থনা করেছি, আমি আরও ভাল মানুষ হওয়ার চেষ্টা করেছি।
শীঘ্রই আমার কাছে মনে হয়েছিল যে সন্ত্রাস হিসাবে কী শুরু হয়েছে
এবং বাস্তবে পরিণত হতে পারে যে প্রকৃত মানুষের বুদ্ধি, তা আত্মরতির কাছে
নৈতিক অবজ্ঞায় পরিণত। হতে পারে
আমার বন্ধুরাও তা মনে করে আমার হাত ধরেছে,
আমাকে বলেছে তারা বুঝতে পেরেছে
মানুষের অপব্যবহার ও তাদের অবিশ্বাস্য ঘৃণিত ব্যক্তিত্ব– যা আমি চিহ্নিত করেছি,
সব কিছু বুঝে (তাই আমি একবার ভেবেছিলাম)এতো অল্পের জন্যে আমাকে এতো বেশি দিতে হয়েছিল যে আমি একটু অসুস্থ হয়ে উঠেছিলাম।
যদিও তাদের মতে আমি তখন ভাল ছিলাম (আমার হাত গভীরভাবে তালি দিয়েছে)–
একজন ভাল বন্ধু আর মানুষ, সব সময় উদ্দীপনার ভালো সহায়ক হয় না।
আমি দুঃখে কাতর  ছিলাম না! ছিলাম সহজ-সরল
রাণী বা সন্তের মতো।
ঠিক আছে, এটি সবাই আকর্ষণীয় অনুমানের জন্য তৈরি করে।
এবং এটি আমার কাছে ঘটেছিল যা গুরুত্বপূর্ণ তা বিশ্বাস করা
সব সময়, বিশ্বাস করা হয়  ভাল কাজ কেবল চেষ্টার মধ্যেই আসবে,
ভাল সম্পূর্ণরূপে দুর্নীতির প্রারম্ভিক উৎসাহ থেকে
একদম অচেনা
প্ররোচিত  বা প্রলুব্ধ হ‌ওয়ার ক্ষেত্রে
এ ছাড়া আমরা আর কী?
অন্ধকার মহাবিশ্বে ঘূর্ণায়মান,
একা, ভয়, ভাগ্যকে প্রভাবিত করতে অক্ষম—
আমাদের আসলে কী আছে?
মই আর জুতার সঙ্গে দুঃখ দুঃখ কৌশলের খেলা,
লবণবিষয়ক জটিলতা, অশুচি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত
চরিত্র গঠনের চেষ্টা
ও তার পুনরাবৃত্তি।
মহাশক্তিকে তুষ্ট করতে আমাদের আর কী দরকার?
এবং আমি মনে করি শেষ পর্যন্ত এই একটা প্রশ্ন ছিল
যা আগামেমনকে ধ্বংস করেছিল, সেখানে সৈকতে
গ্রীক জাহাজ প্রস্তুত, সমুদ্র অদৃশ্য হয়ে ওঠে
নির্মল বন্দরের আশ্রয়ে, ভবিষ্যৎ প্রাণঘাতে অদৃশ্য আর অস্থির: তিনি বোকার মতো ভাবলেন, এটি নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে। তার বলা উচিত ছিল
আমার কিছুই নেই, আমি তোমার দয়াতে আছি।
————          ————-          —————–

লুইজ এলিজাবেথ গ্লুক(১৯৪৩) আমেরিকান কবি ও প্রাবন্ধিক।কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল অফ আর্টস থেকে তিনি ইংরেজি  সাহিত্যে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেছেন (১৯৬৭–১৯৬৮)।তিনি এ বছর (২০২০)সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী। এ ছাড়াও তিনি পুলিৎজার পুরস্কার, জাতীয় মানবিক পদক, জাতীয় পুস্তক পুরস্কার, জাতীয় বই সমালোচক সার্কেল পুরস্কার, বলিঞ্জেন পুরস্কারসহ অনেক সাহিত্য পুরষ্কারে ভূষিত।
লেখালেখির পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাটের নিউ হ্যাভেনের ইয়েল ইউনিভার্সিটিতে ইংরেজির অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন তিনি।

Translated into Bengali by Professor Dr. Masudul Hoq

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s